3D Studio Max [পর্ব-০২]

0
620

কিভাবে কোত্থেকে শুরু করব ?

ইন্টারফেস আর কি বোর্ড শর্টকাট আর সিক্রেট গুলা জানার পরে প্রথমেই আপনাদের যেটা আয়ত্ত করতে হবে সেটা হচ্ছে মডেলিং করা। মডেলিং মানে কুনো জিনিশের ত্রিমাত্রিক প্রতিরুপ তৈরি করা। এই মডেলিং করা টাই শবচাইতে সময় সাপেক্ষ বেপার। থ্রি ডি ম্যাক্স শেখার ক্ষেত্রে এই মডেলিং জিনিস টা আয়ত্ত করতেই আপনাদের একটু সময় লাগবে।

থ্রি ডি ম্যাক্স এর মধ্যে মডেলিং করার অনেক উপায় আছে। এই টিউটোরিয়াল এ আমি যে বিষয় টা মেইন্টেইন করব টা হল অযথা বাহুল্য বর্জন। যে জিনিস গুলা প্রাক্টিকেল প্রডাকশনে আপনার লাগবে না ( আমার যেগুলা লাগে না ) সেগুলা আমি এড়িয়ে যাব যাতে আপনাদের শেখা টা অনেক সহজ হয়ে যায়। আমি গত ১০ বছর ধরে ম্যাক্স এ কাজ করছি , শিখেছি অনেক অনেক জিনিস … কিন্তু এখন আমার মনে হয় অনেক কিছুই শিখতে অনেক বেশি সময় অপচয় করেছি যেটা পরবর্তীতে আমার কুনো কাজেই লাগে নাই। তাই আমার টিউটোরিয়াল গুলা চেষ্টা করব যাতে মেনুয়েল ধর্মী না হয় যেটা খুবি বিরক্তিকর , আর বিরক্তি চলে আসলে সেখার মজা তাই শেষ হয়ে যাবে । আমি চেষ্টা করব প্রাক্টিক্যাল প্রজেক্ট বেসড টিউটোরিয়াল এ যাতে আপনারা কিছুটা হলেও শিখতে পারেন আর আপনাদের আগ্রহ বজায় থাকে। যাক , কাজের কোথায় আসি…

মডেলিং শেখা টা কিভাবে শুরু করতে হবে ? মডেলিং শিখতে হলে আপনাকে শুরু করতে হবে লাইন/স্প্লাইন ড্রইং শেখা থেকে। লাইন থেকে খুব সহজেই আমরা অনেক রকম থ্রিডি অবজেক্ট তৈরি করতে পারি যেটা অন্যভাবে করতে হলে অনেক সময় লাগে। প্রথমেই ডাইরেক্ট থ্রিডি অবজেক্ট থেকে মডেল করা শেখা শুরু করবেন না , তাহলে পদে পদে বিপদে পরবেন। তাই বলব প্রথমে লাইন ড্র করা শিখতে হবে , লাইন এডিট করা শিখতে হবে , লাইন সম্পর্কিত কিছু দারুন দারুন Modifier আছে অইগুলা সম্পর্কে ধারনা নিতে হবে।

লাইন/স্প্লাইন মডেলিং শেখার পরে আমরা Poly Modeling শেখা শুরু করতে পারি যেটা বর্তমানে সবচাইতে জনপ্রিয়। Spline মডেলিং আর Poly মডেলিং একটা আরেকটার পরিপূরক। এছারাও আর অনেক ধরনের মডেলিং টেকনিক আছে যা আসলে আজকাল আর তেমন একটা ব্যাবহার হয় না যেমন patch modeling বা NURBS modeling

মডেলিং সেখার পরেই আপনাকে শিখতে হবে সেই মডেল টাকে রঙ বা টেক্সচার দেয়ার। তারপর উপযুক্ত আলো ব্যাবহার করে আপনি দিতে পারবেন আপনার মডেল এর জীবন্ত রুপ। একবার একটা মডেল তৈরি করে ফেললে আপনি সেটাকে যেভাবে যখন খুশি ব্যাবহার করতে পারবেন।

নিচের ছবিগুলর মতই আপনি তৈরি করতে পারেন আপনার ইচ্ছামত মডেল …

 

মডেলিং ভালভাবে শিখতে হলে অনেক প্র্যাকটিস করতে হবে আর টুল গুলা সম্পর্কে ভাল ধারনা থাকতে হবে। তাহলে চলুন 3D Studio Max এর ইন্টারফেস এর সাথে আগে একটু পরিচিত হয়ে যাই।

ইন্টারফেস পরিচিতি

আপনি যখন 3ds max 2012 ইন্সটল করে সফটওয়্যার টি ওপেন করবেন তখন এরকম একটি ভিউ আপনি দেখতে পারবেন … আপনি অন্য যেকোনো ভার্সন ই ব্যাবহার করেন না কেন , ইন্টারফেস মুটামুটি একই।

  • ১- এপ্লিকাশন বাটন/ফাইল বাটন, এখান থেকে সব ধরনের ফাইল ওপেন সেভ ইমপোর্ট এক্সপোর্ট করতে পারবেন।
  • ২- কুইক এক্সসেস , এখানে সেভ করা ওপেন করা বাটন গুলা দেয়া আছে আলাদা ভাবে কারন এগুলো প্রায় ই লাগে।
  • ৩- ইনফো সেন্টার , এটা হচ্ছে সফটওয়্যার এর হেল্প ডেস্ক বলতে পারেন। কোথাও আটকে গেলে এখানে সার্চ দিলেই চলে আসবে আপনার জন্যে সাহায্যের পসরা। যেটা লিখে সার্চ দিবেন সেটা সম্পর্কে সব রেফারেন্স হাযির করা হবে আপনার সামনে। এর জন্যে আপনার ইন্টারনেট কানেকশন থাকতে হবে।
  • ৪-মেনুবার , এখানে প্রয়োজনীয় সব টুল গুলা দেয়া আছে মেনু আকারে।
  • ৫-মেইন টুল বার , এইখানে সবচাইতে বেশি ব্যাবহারিত টুল গুলা আইকন আকারে সাজানো আছে।
  • ৬-কমান্ড পেনেল , থ্রি ডি ম্যাক্স এর এটি খুব দরকারি একটা অংশ। এখান থেকেই কোনও অবজেক্ট বানানো শুরু আর এডিট করতে হয়। এর মধ্যে ৬ টা ট্যাব/ক্যাটাগরি আছে , create , modify ইত্তাদি
  • ৭-এখানে কমান্ড পেনেল এর ক্যাটাগরি গুল দেখা যাবে।
  • ৮- এখানে আবার উপরের ক্যাটাগরির সাব ক্যাটাগরি গুলো দেখতে পাব।
  • ৯- ভিউপোর্ট নেভিগাশন কন্ট্রোল , এখান থেকে আমরা আমাদের ভিউপোর্ট কে কন্ট্রোল করব।
  • ১০- এনিমাশন প্লেবেক কন্ট্রোল , এখানে আমাদের তৈরি এনিমাশন প্লে করে দেখতে পারব , তাছাড়া এনিমেশনের অন্যান্য ব্যাপার যেমন এনিমেশনের দৈর্ঘ্য , স্পিড ইত্তাদি এখানে সেট করা যায়।
  • ১১-এনিমাশন এর কিফ্রেম গুলা বসাব আমরা এই জায়গা তে।
  • ১২- প্রমট লাইন আর স্ট্যাটাস বার , এখানে আমরা কুনো নিদ্রিস্ট টুল সিলেক্ট থাকা অবস্থায় কি করতে পারি টা বলে দিবে আর লাস্ট কি কাজ করা হল টা মনে রাখবে। যেমন আপনার লাস্ট রেন্ডার টি করতে কত সময় লাগল তা আপনি এখানে পাবেন।
  • ১৩-এখানে ম্যাক্স স্ক্রিপ্ট ইউস করতে পারবেন
  • ১৪- ট্র্যাক বার/ কার্ভ এডিটর , এখানে এনিমাশন কে ফাইন টিউন করা হয়।
  • ১৫- টাইম স্লাইডার , এনিমেশন এর টাইম স্লাইডার/স্ক্রাবার।
  • ১৬- ভিউপোর্ট – বেশিরভাগ সময় আপনাকে এটার দিকেই তাকিয়ে থাকতে হবে। আপনার সকল কাজের ফিডব্যাক পাবেন এই ভিউপোর্ট এ।
  • ১৭- মডেলিং রিবন , এটা ম্যাক্স ২০১২ এ নতুন এডিশন , এখানে কিছু দরকারি মডেলিং এর শর্টকাট এনে রাখা হয়েছে হাতের কাছে দ্রুত প্রবেশের সুবিধার জন্যে

 

Please comment Here (ভাল লাগলে কমেন্ট করুন)