The Admiral: Roaring Currents কোরিয়ান মুভি রিভিউ

0
371

নামঃ The Admiral: Roaring Currents
সালঃ ২০১৪ দেশঃ দক্ষিণ কোরিয়া
সময়ঃ ২ঘণ্টা ৮মিনিট
মুক্তির তারিখঃ ৩০ জুলাই ২০১৪
জনরাঃ ওয়ার/ড্রামা
পরিচালকঃ Kim Han-min
অভিনয়েঃ Choi Min-sik (এডমিরাল/Yi-sun-shin), Etc… (অনেক বেশি কাস্ট)

IMDb: 7.2/10
Personal Rating: 8.9/10

📣নিজস্ব উক্তিঃ কিছু মুভিকে বিশ্লেষণ করার প্রয়োজন হয়তো পরে না। কারা যেনো বলে? যে মুভি নাকি সময় নষ্টের শ্রেষ্ট স্থান, কিছু শিখা যায় না, নিজেকে অন্য গ্রহের প্রানী বানানোর ধান্ধা সিরিয়াসলি! আমার সেইসব বাস্তবাদী মানুষ গুলোকে বলতে ইচ্ছে হয় “ইতিহাস দেখেছেন কখনো স্বচক্ষে?”
অন্ধের মতো পড়ে গিয়েছেন বইয়ের পাতায় লিখা কাহিনী গুলো, বেশি বশীভূত হলে হয়তো স্বপ্নে বইয়ের পাতার অক্ষর গুলোকে মনের মধ্য এনে কোন চিত্রকল্প ফুটে তুলেছেন নিজের মতো করে। এছারা আর কিছু পেরেছেন? মুভি তৈরি কারিগর, সেখানে অভিনয় করা প্রত্যক শিল্পী যেনো ইতিহাসের প্রতিচ্ছবি গুলোকে পাল তৌলা নৌকার মতো মেলে ধরছে আমাদের সম্মুখে। ওরা শুধু বলতে চায় তোমাদের ইতিহাস হয়তো আমরা দেখাতে পারিনি কিন্তু ১২০ মিনিটে কিছু দেখাতে পেরেছি যেটা হয়তো তোমাদের মনে ইতিহাসের নিভে যাওয়া অগ্নির সূচনা তৈরি করবে!
স্যালুট সকল মুভি তৈরি কারিগর আর অভিনেতা/অভিনেত্রী দের। হ্যাঁ আপনারাই পেরেছেন মুভির মাধ্যমে আমাদের মনে জায়গা করে নিতে তার সাথে কিছু শিখিয়ে দিতে।

🔭মুভির বিষয়বস্তুঃ বিশ্বব্রহ্মাণ্ড শুরু থেকে শেষ সবকিছু একটা যুদ্ধ! হয়তো গ্রেটেস্ট ওয়ার কিংবা যুদ্ধের সূচনা আমরা দেখিনি, জানি না লড়াই কিভাবে করতে হয়? শুধু অনুভূতির মধ্য ভিতরে তৈরি হচ্ছি আর বলছি “আমরা প্রস্তুত।” প্রত্যকটা যুদ্ধে কতোটা ত্যাগ,ধৈর্য,সাহস সর্বশেষ ভাগ্য কতটা প্রয়োজন সেটা আমরা দেখে থাকি। দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধ থেকে শুরু করে স্বাধীন হওয়া প্রত্যকটা দেশের ইতিহাসের পটভূমিতে কত গল্প রয়েছে হয়তো সেগুলোর ইতিহাস অজানা থেকে যাবে। একেকটা মানুষের,পরিবারের,রাজ্যর,সৈন্যর সবার আত্মকথা লিখতে গেলে কয়েক যুগ পার হয়ে যাবে। যুদ্ধ জয়ের প্রধান হচ্ছে ভয় কে জয় করা! “ভয়” শব্দটা মনের মধ্য তোলপাড় করে দেওয়ার জন্য যথেষ্ট কিন্তু সেই অনুভূতিটাকে ধমিয়ে রেখে, নিজের কথা না ভেবে, যে দেশের জন্য লড়ে যায় সেই প্রকৃত বীর। বীরপুরুষদের বীরগাথাগুলো যখন চোখের সামনে উদিত হয় তখন মনের মধ্য থাকা সংশয়কে কাটিয়ে নতুন উদ্যমে চলতে ইচ্ছে হয়। যুদ্ধ মানেই “মারো নাহয় মরো।” ভয়ে মরার চেয়ে লড়াই করে মরে যাওয়ার মধ্য যে আনন্দ হয়তো সেটা অন্য কোন অমূল্য রত্নে ও পাওয়া যাবে না।

আমি দেশের জন্য মরবো কিন্তু লড়াই করে!

🎬মুভির সিনেমাটোগ্রাফিঃ আমি কিচ্ছু বলবো না শুধুমাত্র দেখছিলাম। কতোটা যত্নে একেকটা স্ক্রিনপ্লে তৈরি করেছে, সময়ের ধারণ করা প্রত্যকটা অংশ শুধু অবাক করে দিয়েছে, লোকেশন, একশন, কৌশন, দৃঢ়তা নিখুঁত। ব্যাকগ্রাউন্ড মিউজিক, ডায়লগ আহা! অনবদ্য!

মাস্টারপিস!

শুধু দেখবেন আর অনুভব করবেন।

📺মুভির প্লটঃ প্রথমবার যুদ্ধে সব কিছু হারিয়ে যখন কোরিয়ান প্রধান সেনাপতি এডমিরাল (Yi-Sun-shin) হতাশায় ভেঙ্গে পরেছিলো! পুনঃরায় আত্মবিশ্বাসের সাথে যুদ্ধে মৃত সকল সৈনিক আর স্বাধীনতার কথা চিন্তা করে দ্বিতীয় বার সমুদ্র যুদ্ধ করতে প্রস্তুত হয়েছে এডমিরাল ও তার সৈন্যদল। কিন্তু তাদের কাছে মাত্র ১২ টা জাহাজ সহ ১ টূটল জাহাজ রয়েছে। শত্রুপক্ষের রয়েছে ৩৩০ টি জাহাজ! যুদ্ধের আগেই শত্রুপক্ষের গুপ্তচর এসে এডমিরাল বাহিনীদের একমাত্র শক্তিশালী টূটল জাহাজকে পুড়িয়ে ফেলেছে! ফলে এডমিরাল এর সৈন্যদের মধ্য আতংক ও ভয়ের সৃষ্টি হয়েছে, তারা ঠিক করেছে যুদ্ধ করবে না! ঐদিকে শুত্রুপক্ষ ঘোষণা দিয়েছে যুদ্ধ শুরু করার!

কি করবে এডমিরাল ও তার সৈন্যদল? ভয়ে কাতর সৈন্যরা, শুধুমাত্র ১২টি জাহাজ সাথে নেই কোন রাজার সাহায্য, সমুদ্রের রণভূমিতে রয়েছে ঘূর্ণিপাকের এক বিশাল গোলকধাঁধা! পারবে যুদ্ধ জয় করতে নাকি আবারো হারের নেশা তাদেরকে ভোগ করতে হবে?

📎বিঃদ্রঃ ভয়কে ভয় দিয়ে কাটিয়ে সামনে এগোনোর সাহসিকতা সত্যি অতুলনীয়! আমরা জানি আমরা হারবো কিন্তু চেষ্টা করে হেরে যাওয়াতে লজ্জা নেই, চেষ্টাতে ক্ষতি নেই। তবে ভাগ্য সহায়য়ার কথা যথার্থ প্রয়োজন নাহয় সেটা নিজের যুদ্ধ কিংবা দেশের যুদ্ধ কোনটাই বিজয়ী হওয়া সম্ভব নই।

মুভিটি্র ডাউনলোড লিংক পেতে আমাদের ফেসবুক পেজ এ মেসেজ দিন আর লাইক দিয়ে পাশে থাকুন। আরো মুভির রিভিউ পেতে আমাদের ওয়েবসাইট আইটিডক্ট.২৪ ডট কম এর সাথেই থাকুন। ধন্যবাদ

 

Please comment Here (ভাল লাগলে কমেন্ট করুন)