মিশন মঙ্গল (Mission Mangal) হিন্দি মুভি রিভিউ।

0
445

মিশন মঙ্গল (Mission Mangal) হিন্দি মুভি রিভিউ।

ছবি: Mission Mangal (মিশন মঙ্গল)
অভিনয়ে: Akshay kumar, Vidya balan, Sonakshi sinha, Taapsee pannu, Nithya menen, Kirthi kulhari, Sharman joshi & others.
পরিচালনায় : Jagan shakti
বাজেট: 100 crore

রেটিংঃ

IMDB: 6.8/10
Personal: 6/10

কাহিনীঃ ছবির নাম দেখেই বুঝা যায়, মঙ্গল গ্রহে স্যাটেলাইট পাঠানোকে কেন্দ্র করে গড়ে উঠেছে ছবির গল্প। পৃথিবী থেকে মঙ্গল গ্রহের দূরত্ব 54.6 মিলিয়ন কি.মি (মিনিমাম)!!, এভারেজ ২২৫ মিলিয়ন কি.মি আর সর্বোচ্চ দূরত্ব ৪০১ মিলিয়ন কি.মি। এবং গতির উপর নির্ভর করে পৃথিবী থেকে মঙ্গল গ্রহে যেতে সময় লাগবে ১৫০-৩০০ দিন!! তো অক্ষয় কুমার ২০১২ সালে ফ্যাট বয় (fat boy) মিশনে ব্যর্থ হলে তাকে মিশন মঙ্গল ডিপার্টমেন্টে বদলি করে দেয়া হয়। ২০১২ সালে যখন ভারত চাঁদে তাদের চন্দ্রযান-২ পাঠানোতে মনোযোগী তখন মঙ্গল গ্রহে তাদের স্যাটেলাইট পাঠানোর পরিকল্পনা ছিল ২০২২ সালে। আর তখন পর্যন্ত এশিয়ার কোন দেশ মঙ্গলে তাদের স্যাটেলাইট পাঠাতে সামর্থ্য হয় নি। রাশিয়া ৮ বার আর নাসা ৪ বার ব্যর্থতার পর সফল হয়েছিল। এগুলো হলো বিহাইন্ড দ্যা স্টোরি। এমন কঠিন একটা চ্যালেন্জ নিয়ে কাজ শুরু করেন অক্ষয় আর বিদ্যা বালান। এতো বড় কাজের জন্য সাহস আর ভরসা ২ টাই দরকার যার একটাও ছিলো না তখন। সেই সময় মঙ্গলে স্যাটেলাইট পাঠানোর জন্য অক্ষয়ের টিমের পক্ষ থেকে ৮০০ কোটি টাকার বাজেট চাওয়া হয় যেখানে নাসার লাগে ৬ হাজার কোটি টাকা। তারপরেও এটা সরকারের অনুমোদন পায় না। পারে মাত্র ৪০০ কোটি টাকা দেয়া হয় এই প্রোজেক্ট এর জন্য আর যে নভোযানটি দেয়া হয় সেটির ফুয়েল ক্যাপাসিটি চাঁদে যাওয়ার পর্যন্ত!! এই টাকা দিয়ে কি সম্ভব এতো বড় প্রোজেক্ট বাস্তবায়ন??

হলেও কিভাবে সম্ভব, তার জন্য দেখতে হবে ছবিটি। ছবির কমেডি দর্শক ধরে রাখতে সাহায্য করেছে। নারী শক্তি দেখানো হয়েছে অনেক ভালো ভাবে। বিদ্যা বালানই প্রধান চরিত্র। সহযোগী অভিনেতা/অভিনেত্রীরা অনেক বড় মাপের। তারাও তাদের ১০০% ই দিয়েছেন।

ছবিতে কিছু অযথা অংশ সংযোজন করা হয়েছে। যেমন বিদ্যা বালানের মেয়ে পার্টিতে গেছে, ১২ টা বেজে গেছে তাও বাসায় আসে নি। তাই বিদ্যা সেখানে গিয়ে ড্রিংস করে মেয়ের সাথে নাচে!!! এমন কয়েকটা সিনের দরকার ছিলো না। আমার মনে হয়েছে ছবিতে সায়েন্টিস্টগুলোকে ছোট দেখানো হয়েছে!! এক-তৃতীয়াংশের বেশী সময় মিশন মঙ্গল impossible ছিলো। হঠাৎ কিভাবে স্যাটেলাইট তৈরী হয়ে গেল সেটার নিয়ে আরো কিছু সিন থাকলে ভালো হতো। সবার শেষে মোদী একটা ভাষনে গর্ব করে বলে মঙ্গলে যাওয়ার জন্য মঙ্গলযাত্রা প্রতি কি.মি. তে মাত্র ৭ রুপি খরচ হয়েছে!!! নিজের সরকার বাজেট দিবে না আবার সফল হলে সেটার কৃতিত্ব দাবি করবে। বাংলাদেশের মতো সব খানেই উপযুক্ত জায়গায় অর্থ দেয়া হয় না ছবিটি দেখে বুঝলাম।
আশা করছি বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট নিয়েও বাংলাদেশের কেউ এমন একটি সিনেমা তৈরী করবে।

Please comment Here (ভাল লাগলে কমেন্ট করুন)