উইন্ডোজ ১০ এর গোপন মোড গুলো যেভাবে ব্যবহার করবেন ।

1
166

আপনি জানেন কি? উইন্ডোজ ১০ এর কত গুলো অতিরিক্ত মোড রয়েছে যেগুলো কিনা আপনার কম্পিউটারের আরো ফাংশনালিটি চালু করে। এছাড়াও আপনার কম্পিউটারের ট্রাবলশুট বা (সমস্যার সমাধান) করতে সাহায্য করে এবং কিছু কাজের কার্যকারিতা বৃদ্ধিতে কাজ করে থাকে। এগুলার ভিতরে কিছু গোপনীয় মোডের নাম হয়তো আপনি শুনেছেন কিন্তু ব্যবহার করে দেখেননি।

চলুন দেখে নেয়া যাক, উইন্ডোজ ১০ এর কিছু গোপন মোড গুলো । আসলে এগুলো আমাদের কি সহযোগিতা করছে এবং এদের কি ধরণের সক্ষমতা রয়েছে?

১. God Mode গড মোড

এই মোডের নাম শুনে হয়তো অনেকে অনেক কিছুই ভাবতে পারেন কিন্তু গড মোড নামটি আসলে এই মোডের কমান্ডিং নাম থেকে এসেছে। উইন্ডোজ ১০ এর যত ধরণের এডমিনিস্ট্রেটর কাজ গুলো রয়েছে, সবগুলো একটি পেজে ওপেন করে থাকে। যাতে সহজেই এই খানে থেকে এক্সেস করা যায়।

এটা সেট আপ করা খুবই সহজ । প্রথমে আপনার ডিস্প্লের যেকোনো এক জায়গায় Right Click করুন। তারপর নির্বাচন করুন NEW > FOLDER. এখন এটি Rename করুন নিচের কোডটি দিয়ে।

 

GodMode.{ED7BA470-8E54-465E-825C-99712043E01C}

এখনে সেভ করা পর দেখবেন Control Panel এর মত icon আসছে । এর ভিতরে ঢুকলে উইন্ডোজ ১০ এর সকল এডমিনিস্ট্রেটর অপশন গুলো আসবে। এতে আপনার প্রয়োজনীয় কাজটি সহজেই নির্বাচন করে, দ্রুত শেষ করতে পারবেন।

 

২. গেম মোড।

উইন্ডোজ 10 এর আগের উইন্ডোজ সংস্করণের তুলনায় আরও বেশি গেমিং বৈশিষ্ট্য এনেছে। গেমিং এর চাহিদার কথা বিবেচনা করে, উইন্ডোজ ১০ তার এর সেটিংস্‌ এ আলাদা একটি প্যানেল রেখেছে। যেটার মধ্যে গেমিং মোড একটি, এই গেমিং মোড সিস্টেমকে অপ্টিমাইজ করে গেমের জন্য কার্যক্ষমতা বৃদ্ধি করে।

এই অপশনটির জন্য, প্রথমে সেটিংস্‌ এ যাবেন। তারপর নির্বাচন করুন Gaming > Game Mode. এখানে গেমিং মোড অফ থাকলে অন করুন। এটা করার ফলে, উইন্ডোজ আপনার কম্পিউটারকে গেম খেলার জন্য অপ্টিমাইজ করবে। অর্থাৎ গেমিং এর জন্য প্রয়োজনীয় সকল অপারেশন গুলো ইন্টারনাল্লি চালু করবে।

 

৩. ব্যাটারি সেভার মোড

 

আপনার যদি ল্যাপ্টপ ব্যবহারকারী হন, তাহলে জরুরী মুহূর্তে চার্জ শেষ হয়ে যাওয়ার অভিজ্ঞতা অবশ্যই রয়েছে। এছাড়াও ল্যাপ্টপের ব্যাটারি ধীরে ধীরে নষ্ট হয়ে যাওয়ার শঙ্কায় থাকেন। এই অবস্তা গুলো কথা মাথায় রেখে, উইন্ডোজ ১০ ব্যাটারি সংরক্ষণের জন্য একটি মোড ডিজাইন করেছে। সেটি হলো ব্যাটারি সেভার মোড। 

এটা মূলত যে কাজ গুলোতে চার্জ বেশি লাগে, যেমনঃ  ব্যাকগ্রাউন্ডে অপ্রয়োজনীয় অ্যাপ চলমান থাকা, ইমেইল অটো রিফ্রেশ হওয়া ইত্যাদি কাজ গুলো বন্ধ করে রাখে । এই মোড ডিসপ্লের উজ্জ্বলতা কমিয়ে রাখে, যেটা কিনা ব্যাটারি ও চার্জ দুটোই বাঁচাতে সাহায্য করে।

 

 ব্যাটারি সেভার মোড অপশনটিতে পরিবর্তন আনতে, প্রথমে সেটিংস্‌ এ যেতে হবে, তারপর System>Battary. এখন চেক করুন Turn battery saver on automatically if my battery falls below এবং percentage সেট করুন । এছাড়াও, আপনি Battery saver status until next charge এটি চলু করে রাখতে পারেন। যাতে পরবর্তী চার্জ দেয়া আগ পর্যন্ত এটি কার্যকর থাকে। 

 

৪. ডার্ক মোড

প্রায় সব অপারেটিং সিস্টেমই এখন ডার্ক মোড অপশনটি রয়েছে, তাই উইন্ডোজ ১০ এও এই অপশনটি আনা হয়েছে। ডার্ক অপশন চালু করার সাথে সাথে উইন্ডোজের ডিফ্লট অ্যাপ, সেটিংস্‌ অ্যাপ, এবং Flile Explorer ডার্ক হয়ে যায়। 

ডার্ক মোড ব্যবহার করতে, প্রথমে সেটিংস্‌ এ যেতে হবে, তারপর  Personalization > Colors এবং  Choose your default app mode এর নিচে থাকা  Dark অপশন নির্বাচন করতে হবে । এছাড়ও আপনি ইচ্ছা করলে Custom অপশন থেকে অন্য রঙ নির্বাচন করতে পারন।

 

৫. কম্পাটিবিলিটি (Compatibility) মোড

কম্পাটিবিলিটি (Compatibility) মোড দ্বারা মূলত পুরাতন সফটওয়্যার যে গুলো অনেক আগে তৈরি করা হয়েছে কিন্তু এখন আর আপডেট করা হয় না সেই সকল সফটওয়্যার সঠিকভাবে রান করানোর জন্য এই মোডটি ব্যবহৃত হয়। 

এটি ব্যবহার করার জন্য, আপনাকে যেকোনো পুরাতন সফটওয়্যার এর executable ফাইলটি সিলেক্ট করে, মাউসের রাইট বাটন এ ক্লিক করতে হবে তারপর Properties এ যাবেন। Properties Box ওপেন হলে Compatibility নির্বাচন করুন। এখন এই পেজে আপনি সকল Compatibility অপশন দেখে পারবেন, অ্যাপ টির জন্য যে অপশন ভালো হবে ঐটা নির্বাচন করে রান করুন।

 

৬. এয়ারপ্লেন মোড

 এয়ারপ্লেন মোডটিকে খুবই সাধারণ মোড মনে হলেও, এটা কিন্তু বেশ উপকারী। এটা কম্পিউটারে স্মার্টফোনের এয়ারপ্লেন মোডের মতই কাজ করে, এই মোড অন করার সাথে সাথে ওয়াই-ফাই, ব্লুটুথ, ডাটা, তারবিহীন যোগাযোগ সব বন্ধ হয়ে যায়। 

যা কিনা উইন্ডোজ ল্যাপ্টপের ব্যাটারি সেভিং অপশন হিসেবে কাজ করে । অফলাইন কাজ করার ফলে ব্যাটারি বেশি দিন দীর্ঘস্থায়ী হয়।  

এয়ারপ্লেন মোড অন করতে Settings > Network & Internet > Airplane mode

 

৭. টেবলেট মোড

 

আপনি যদি ট্যাবলেট বা ল্যাপটপে উইন্ডোজ 10 ব্যবহার করে থাকেন, তবে আপনি হয়তো ট্যাবলেট মোড সম্পর্কে জানেন। আপনার কাছে যখন মাউস এবং কীবোর্ড সংযুক্ত না থাকে, তখন টাচস্ক্রিন ডিভাইসে এই ইন্টারফেসটি ব্যবহার করাকে সহজ করে তোলে । উদাহরণস্বরূপ, সমস্ত অ্যাপ্লিকেশন সম্পূর্ণ স্ক্রিনে খোলে এবং কিছু উপাদান গুলিতে অপশন নির্বাচন করতে আপনার আঙ্গুলগুলি ব্যবহার করা জন্য আরও বেশি প্যাডিং দেওয়া থাকে।

টেবলেট মোড ব্যবহার করতে, Settings > System > Tablet mode অপশনে গিয়ে অ্যাক্টিভ করুন।

 

8. ফোকাস মোড

এটিকে ফোকাস মোড না বলে ফোকাস এসিস্ট বলা হয় কারণ এটার ফাংশনালিটি একটি ইউনিক মোডের মত। মূলত যারা কিনা কাজে ফোকাস থাকতে পছন্দ করে তাদের জন্য এই মোডটি খুবই কার্যকর । এটা দ্বারা সহজেই কাজে ব্যঘাত ঘটায় বা অপ্রয়োজনীয় নোটিফিকেশন গুলো সহজেই সামনে আসা থেকে বন্ধ করে রাখা যায়।

ফোকাস এসিস্ট ব্যবহার করতে, Settings > System > Focus assist এখানে আপনি Off, Priority only, or Alarms only অপশন গুলো সিলেক্ট করতে পারবেন। এই মোডে আপনি কি কি দেখতে চান তার priority list তৈরি করতে পারেন। তা করতে ক্লিক করুন Customize your priority list অপশন এ।

মূলত এই গুলোই ছিলো উইন্ডোজ ১০ এর গোপন মোড নিয়ে আজকের আলোচনা । পরবর্তী কোনো পোস্টে আবার দেখা হবে। আইটি ডক্টর ২৪ ডট কমের সংগেই থাকুন

1 COMMENT

  1. […] উইন্ডোজ ১০ অপারেটিং সিস্টেমটি সবচেয়ে বেশি বিক্রয় হওয়ার জন্য, উইন্ডোজ ডিফেন্ডারের এই ভালো কার্যক্ষমতাটি কাজ করছে বলে বিবেচনা করা হয়। এটা দ্বারা সহজেই অ্যাপের ভাইরাস সুরক্ষা প্রদান, ফায়ারওয়াল প্রোটেকশন, ডিভাইস সুরক্ষা এগুলো সরাসরি উইন্ডোজ সেটিংস্‌ মেনু থেকে পরিচালনা করা যায়। […]

Please comment Here (ভাল লাগলে কমেন্ট করুন)