আসল ৩টি লিনাক্স স্মার্টফোন অপারেটিং সিস্টেম। চাইলে আপনি আজই আপনার ফোনে ইনস্টল করতে পারবেন

0
669

আস সালামু আলাইকুম, আশা করি সবাই ভাল এবং সুস্থ আছেন। আমি আজ আপনাদের সামনে নিয়ে এসেছি খুবই গুরুত্বপূর্ণ একটি টিউন। আমি জানি অনেকেই হয়ত ফোনে লিনাক্স অপারেটিং সিস্টেম চালাতে চান । কিন্তু চালাতে পারেন নি। কারণ আপনারা হয়ত জানেন যে, এন্ড্রয়েডে শুধু এন্ড্রয়েড অপারেটিং সিস্টেমই চালানো যায়। কিন্তু না। আপনি চাইলে লিনাক্স অপারেটিং সিস্টেম ও চালাতে পারবেন। আমি আজ শেয়ার করবো ৩টি লিনাক্স স্মার্টফোন অপারেটিং সিস্টেম। তো আর দেরি কেন? চলুন কথা না বাড়িয়ে আমরা আমাদের আজকের টপিক এ চলে যাই। ভাবছেন এত ভদ্র হলাম কবে থেকে? এত কম কথায় টিউন শুরু করে দিলাম। আসলে সময় ফেক্ট । সময় একটু বেশি পেলে আরেকদিন এইটা সুদে আসলে পূরণ করে দিবো। হা হা হা…

আসলে আমরা সবাই জানি যে, লিনাক্স এর সিকিউরিটি এবং প্রাইভেসি সবচেয়ে শক্তিশালী। তাই আপনি যদি চান যে, আপনার স্মার্টফোনেরও সিকিউরিটী বাড়াবেন তাহলে অবশ্যই লিনাক্স অপারেটিং সিস্টেম ব্যবহার করতে পারেন। যদিও অনেকদিন হয়ে গেল এই অপারেটিং সিস্টেম স্মার্টফোনে এসেছে কিন্তু অনেকেই এই সম্পর্কে জানে না। তাই আমি জানানোর জন্য চলে এলাম।

তো কতগুলো লিনাক্স অপারেটিং সিস্টেম স্মার্টফোনের জন্য আছে সেটা আমি জানি না। তবে আজকে লিনাক্সে স্মার্টফোন অপারেটিং সিস্টেম এর তিনটি নিয়ে আলোচনা করবো যা আপনি আজই আপনার ফোনে ইনস্টল দিতে পারবেন।

1. Ubuntu Touch by UBports

যদিও উবুন্টু টাচ বাই শুরুর দিকে এটা ততোটা ভাল ছিল না। কিন্তু বর্তমানে এটা Ubports রক্ষানাবেক্ষন করায় এটা এখন খুবই ভাল কাজ করছে। তার মানে উবুন্টুর সেই অপারেটিং সিস্টেম এখন চলতেছে ভালভাবেই।

উবুন্টু টাচ চাচ্ছে স্মার্টফোনকে আরও বুদ্ধিমান করতে। তারা চেষ্টা করতেছে, এরপরও যেসব এপ্স পুরোপুরি কাজ করতেছে না সেগুলোকে কাজ করানোর। এখন এটা অনেকটা আকর্ষনীয়ও বটে। কারণ এতে অনেক সুবিধা পাওয়া যায়। যেমন হোম পেইজেই রয়েছে, নিউজ, ওয়েদার, এপ্স, এবং সোস্যাল নেটওয়ার্ক ইত্যাদি। আর এগুলো খুব ভালই কাজ করে। আপনার যখন প্রয়োজন প্রয়োজনীয় কমান্ড দিয়েই এগুলো চালাতে পারবেন।

ubports ubuntu touch interface

এছাড়া এই উবুন্টু টাচ সত্যিই অনেক শক্তিশালী। তা সত্যেও এটা এক কেন্দ্রিক। এর সিস্টেমটা অনেকটা  Microsoft’s Continuum এর মত,যেটায় কি না মোবাইলের সাথে ওয়্যারলেস HDMI ডিভাইস, কিবোর্ড, মাউস এবং ডেস্কটপ কম্পিউটারের মতই ব্যবহার করা যায়। এর আর ডেস্কটপ লিনাক্স ডিভাইসের মধ্যে মূল পার্থক্য হল ফোনে এ ARM প্রসেসর ব্যবহার করা হয়।

বর্তমানে যেসকল হ্যান্ডসেট  ডিভাইসে এই উবুন্টু টাচ সাপোর্ট করে এবং পূর্বে থেকেই ইনস্টল করা আছে সেগুলো হল… One plus one, Fairphone 2 এবং Nexus 5(Hammerhead) .

One plus 2, one plus 3 ইত্যাদি আরও অনেক ফোনের ডেভেলপমেন্ট চলতেছে।

2. Sailfish OS

jolla, mer , the Sailfish Alliance এবং কমিউনিটি মেম্বাররা Maemo এবং Moblin এর উপর ভিত্তি করে নির্মিত Meego অপারেটিং সিস্টেম এর ধারাবাহিকতায় তৈরি করতে sailfish অপারেটিং সিস্টেম্ম।

যদিও আপনারা হয়ত sailfish os ২০১৩ সালেই jolla বা অন্য কোনো স্মার্টফোনে দেখে থাকবেন। কিন্তু এটা পরে যুক্ত করেছে গুগল নেক্সাস ৫ এবং ৭, দ্য এইচপি টাচপ্যাড(যেটা এন্ড্রয়েডেও রান হয়) , ওয়ান প্লাস ওয়ান, ওয়ান প্লাস এক্স, এবং স্যামসাং গ্যালাক্সি এস থ্রি তে।

ইতোমধ্যে আপনি যদি রাজবেরি পি টু অথবা এর পরবর্তী কোনো টেবলেট বা স্মার্টফোন ব্যবহার করেন তাহলে সেটাতে sailfish অপারেটিং সিস্টেম দেখতে পারবেন। কিছু পুরাতন নোকিয়া ডিভাইসেও sailfish অপারেটিং সিস্টেম ব্যবহার করা হয়।

সেইলফিস এর অনেক সুবিধা রয়েছে সেগুলো আজ নাই বা বললাম। যাইহোক , তবে এটা বিপুল সংখ্যক এন্ড্রয়েড এপ্স এর সাথে সামঞ্জস্যপূর্ণ।  আপনার ডিভাইসে যদি এই Os ইনস্টোল করতে চান তাহলে অবশ্যই  xda-developers.com গিয়ে ইন্সট্রাকশন অনুসরন করুন এবং দেখুন যে, আপনার ডিভাইসটি ঐ অপারেটিং সিস্টেম চালানোর যোগ্য কি না।

3. Plasma Mobile

প্লাজমা মোবাইল এমন এক ধরণের অপারেটিং সিস্টেম যা উবুন্টু টাচকেও ছাড়িয়ে গেছে ২০১৭সালে। প্লাজমা মোবাইলের লক্ষ হচ্ছে, তারা পরিপূর্ণরূপে মোবাইলের জন্য ওপেন সফটওয়্যার সিস্টেম করতে চায়।

বর্তমানে এই প্লাজমা মোবাইল নেক্সাস ফাইভ(hammerhead) এবং নেক্সাস ফাইভ এক্স(bullhed) . kubuntu এর উপর ভিত্তি করে নির্মিত এই প্লাজমা মোবাইল এখন  ইন্টেল বেসড কম্পিউটার এবং ট্যাবলেটেও কাজ করে।

এমনকি প্লাজমা মোবাইল প্রজেক্ট ব্যবহার করে ডেস্কটপ এপ্স এবং widgets এমনকি ubuntu touch এর এপ্স ও রান করানো যাবে এই অপারেটিং সিস্টেমে।

আরো লিনাক্সের মোবাইল প্রজেক্ট যেগুলো চলছে তাদের দুইটি হল…

আপনারা অনেকেই ভাবতেছেন যে, আমাদের তো ঐ ফোনগুলো নাই। তো আমরা কিভাবে লিনাক্স অপারেটিং সিস্টেম চালাবো ? তাই না?

আমি নিচে কিছু সফটওয়্যার এর লিংক দিচ্ছি এগুলো অধিকাংশ ক্ষেত্রেই রোট করা এন্ড্রয়েড ফোনে কাজ করবে। তবে রোট ছাড়া ফোনেও কিছু কাজ করবে।

KBOX

প্রথমেই বলি kbox এর কথা । কারণ এর জন্য আপনাকে রুট করার প্রয়োজন হবে না। এর অনেক ফিচার রয়েছে, সেগুলো একটু গুগল ইউটীউবে সার্চ করলেই পেয়ে যাবেন। কিভাবে এটা ইউজ করতে হয় সেটাও শিখে নিয়েন। সময় স্বল্প । তাই সংক্ষেপে বলছি।

Linux Deploy

এটি ব্যবহার করার জন্য আপনার ফোনটি অবশ্যই রুট করা হতে হবে। নাহলে আপনি এটি ব্যভার ক্রুতে পারবনে না। সরাসরি গুগল প্লে এর লিংক দেয়া আছে। সেখান থেকে ডাউনলোড করে নিন। আর ফিচারগুলো একটু কষ্ট করে জেনে নিন।

Complete Linux Installer

এছাড়াও গুগল প্লে স্টোরে রয়েছে কমপ্লিট লিনাক্স ইন্সটলার। আপনার ফোনটা অবশ্যই রুট করা হতে হবে। র‍্যাম এ পর্যাপ্ত যায়গা ফ্রি থাকতে হবে লিনাক্স ইন্সটল এবং সম্পূর্ণ লিনাক্স ডিস্ট্রো রান করানোর জন্য। বর্তমানে ubuntu, Debian, Fedora, ArchLinux, Kali Linux, openSUSe ইনস্টল করা যাবে এন্ড্রয়েডে।

আরেকটা কথা আপনার এন্ড্রয়েড ফোনের প্রসেসর অবশ্যই AEMv7 বা এর উপরের ভার্শনের প্রসেসর হতে হবে লিনাক্স চালানোর জন্য। তাই আগে ডিভাস ম্যানুফ্যাকচারে গিয়ে দেখে নিন।

আশা করি এই পোষ্ট আপনার জন্য গুরুত্বপূর্ণ ছিল। তাই ভাল লাগলে জানাবেন। আজকের মত বিদায় নিচ্ছি/

আল্লাহ হাফিজ

 

Please comment Here (ভাল লাগলে কমেন্ট করুন)