মাইক্রোসফট অফিসের বিকল্প ‘ওপেন অফিস’

0
514

 

ওপেনঅফিস ডট অর্গ মুক্ত সফটওয়্যারগুলোর মধ্যে সবচেয়ে জনপ্রিয় সফটওয়্যার। মাইক্রোসফট অফিসের সমকক্ষ এই সফটওয়্যার দিয়ে লেখালেখি, হিসেবনিকেশ, উপস্থাপনা, গ্রাফিক্সসহ সব কাজ করা যায়। পাশাপাশি এই সফটওয়্যার দিয়ে প্রেজেন্টেশন, স্প্রেডশীট, ডায়াগ্রাম, ডেটাবেজ তৈরি, চিঠি, ফ্যাক্স সম্পাদনা ইত্যাদি সব কাজ করা যায়। পাশাপাশি থাকছে একটি ড্রয়িং এডিটর, এইচটিএমএল, এক্সএমএল ও ফরমুলা নিয়ে কাজ করার সুবিধা। ওপেনঅফিস এ মাইক্রোসফট অফিসের সকল ফাইল সমর্থন করে এবং ওপেনঅফিস এ কাজ করে মাইক্রোসফট অফিসের এক্সটেনশনে সেভ করা যায়।

ওপেনঅফিস ডট অর্গ বিশ্বের বেশিরভাগ ভাষায় এবং সব ধরনের অপারেটিং সিস্টেমে কাজ করে। এ ছাড়া এটি অন্য কাউকে বিতরণ করতে কোনো রকম লাইসেন্সের প্রয়োজন হয় না। বিভিন্ন ভাষার পাশাপাশি ওপেন অফিস বাংলা ভাষায়ও পাওয়া যায় এবং আছে বাংলা বানান পরীক্ষকও। সরাসরি পিডিএফ ফরমেটে ফাইল সংরক্ষন করা যায়। ওপেন অফিস ইংরেজি ও বাংলা সংস্করণডাউনলোড করা যাবে ওপেন অফিস ডট অর্গ ঠিকানা থেকে। উইন্ডোজ, লিনাক্স সহ অন্যান্য সকল অপারেটিং সিস্টেমে এটি কাজ করবে ।

ওপেন অফিসের নানা সুবিধা
সাধারণত যে মাইক্রোসফট অফিস সফটওয়্যার ব্যবহার করেন অনেকেই তার বেশীর ভাগই পাইরেসি কপি ইনস্টল করে ব্যবহার করা। অন্যদিকে ওপেনঅফিস ডট অর্গ সফটওয়্যারটি একটি মুক্ত সফটওয়্যার যা সবাই নিজের ইচ্ছেমত ব্যবহার, বিতরন, কপি, পরিবর্তন করতে পারবেন। সেদিক দিয়ে এটি কোন ধরনের লাইসেন্সিং ফি ছাড়াই ব্যবহার করা যায়। রয়েছে ক্রস ফ্ল্যাটফর্ম সুবিধা। ওপেনঅফিস মাইক্রোসফট উইন্ডোজসহ লিনাক্স, ম্যাক, সান সোলারিস অপারেটিং সিস্টেমেও চলে। ওপেন অফিস ডট অর্গের রয়েছে একটি পোর্টেবল সংস্করণ। ওপেনঅফিসের ব্যবহারকারী ইন্টারফেসটি ৪০টিরও বেশী ভাষায় পাওয়া যায়। রয়েছে বাংলা ভাষায়ও। বাংলা ওপেনঅফিস সংস্করনের অন্যতম বৈশিষ্ট্যগুলোর মধ্যে রয়েছে বাংলা ইউজার ইন্টারফেস হালনাগাদ করা, বাংলা বানান পরীক্ষার জন্য লক্ষাধিক শব্দের বাংলা অভিধান এবং বিশেষ সহায়িকা। রয়েছে ফাইল কম্পাবিলিটি সুবিধা। নিজস্ব ডকুমেন্ট ফরম্যাট ছাড়াও ওপেনঅফিসে আছে পিডিএফ ও ফ্ল্যাশ কম্পাবিলিটি সুবিধা। মাইক্রোসফট, এইচটিএমএল, এক্সএমএল.ওয়ার্ড ফরম্যাটেও সংরক্ষন করা যায়।

এছাড়া আছে বিশেষ আরেকটি ফিচার আছে যার মাধ্যমে কিছু পিডিএফ ফাইল ইমপোর্ট করে সম্পাদনা করা যায়। এছাড়াও ওপেন অফিসে বড় একটি সুবিধা হলো এতে সরাসরি পিডিএফ ফরমেটে ফাইল সেভ করা যায়। এছাড়াও এ সফটওয়্যারটিতে আছে নিজস্ব দারুন কিছু ফিচার। এগুলোর মধ্যে ফ্লোটিং ফ্রেম এবং গ্যালারি ফ্রেম অন্যতম। এ ফ্রেমটি না রাখতে চাইলে সেখানে রাখা যাবে নোট। খুব বেশি জটিল কোন টপিক বা টেকনিক্যাল শব্দকে সহজ করে বণর্না করতে এই নোট ব্যবহারের মাধ্যমে সেবা পাওয়া সম্ভব। গ্যালারি ফ্রেমটিও বেশ সুন্দর একটি টুলস। এর সাহায্যে প্রতিটা প্যারাগ্রাফের জন্য আলাদা আলাদা ব্যাকগ্রাউন্ড সেট করা যায়। এতে দেয়া আছে শ্র“তিমধুর বেশ কিছু সাউন্ড ক্লিপ, অল্প কিন্তু আকর্ষণীয় কিছু বুলেট, চমৎকার কিছু রুলার এবং দৃষ্টিনন্দন কিছু ব্যাকগ্রাউন্ড। এগুলো দিয়ে সহজেই তৈরী করা যাবে পছন্দের থিম। গান শোনার জন্য ওপেন অফিসে আছে হালকা একটি মিডিয়া প্লেয়ার। যার সাহায্যে কাজ করার সময় শোনা যাবে গানও। এর টুলস মেনুতে আছে অপশন ও কাস্টোমাইজ সাব মেনু। এখান থেকে ইচ্ছে মত সাজিয়ে নেয়া যাবে মেনুবার থেকে আরম্ভ করে এক্সটেনশন, কালার, জাভা, লোড, সেভ, এক্সপোর্ট, ইমপোর্ট, ল্যাংগুয়েজ, ফন্ট, সিকিউরিটি, ভিউ, পাথ ইত্যাদি। এছাড়া কোন সমস্যায় পড়লে এ মেনুতে থাকা হেল্প ফাইলে ক্লিক করলেই পাওয়া যাবে সমাধান।

Please comment Here (ভাল লাগলে কমেন্ট করুন)